চট্টগ্রাম জেলার মধ্যে রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা জনপ্রিয় একটি পর্যটন এলাকা। এখানে পর্যটক দের আকৃষ্ট করার জন্য অনেক কিছু দেখার আছে। বিশেষ করে কাপ্তাই হ্রদ যা, কাপ্তাই পানি বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মিত বাঁধের দ্বারা সৃষ্ট করা হয়েছে। এই হ্রদের স্বচ্ছ ও শান্ত পানিতে নৌকা ভ্রমন অত্যন্ত আনন্দময় ও সুখকর । সব চেয়ে দেখার মত দৃশ্য হল হ্রদের উপরে ঝুলন্ত সেতু। জেলার বরকল উপজেলার শুভলং-এর পাহাড়ি ঝর্ণা এর মধ্যে পর্যটকদের কাছে ব্যাপক পরিচিতি লাভ করেছে। ভরা বর্ষা মৌসুমে মূল ঝর্ণার জলধারা প্রায় ৩০০ ফুট উঁচু থেকে নিচে আছড়ে  পড়ে। এছাড়া  কাপ্তাই জাতীয় উদ্যান উল্লেখযোগ্য ভ্রমণ এলাকা হিসাবে পরিচিত।

 

অপরূপ দৃশ্যে মন রাঙ্গাতে ঘুরে আসতে পারেন- অপার সৌন্দর্যের রাঙামাটি থেকে। যদি আপনি ঈদ এর মধ্যে রাঙ্গামাটি ভমনে যেতে চান তাহলে আপনার ঈদ হয়ে উঠবে আরও আনন্দময়ী।

যদি আপনি রাঙ্গামাটিতে একবার ঘুরে আসেন তাহলে  যাত্রাপথে কাপ্তাই, রাঙামাটি, রাজবন বিহার, জাফলং ঝরনা, ও কালিট্যাং-এর  ছবি আঁকা হয়ে যাবে আপনার মনের ভিতর। বারবার স্মৃতি গুলো দোল খাবে আপনার হৃদয় এর  মাঝে।

 

রাঙ্গামাটি তে কিভাবে যাবেন ?

 

রাজধানী ঢাকা সায়েদাবাদ থেকে বিভিন্ন পরিবহন কোম্পানির অনেক কয়েকটি বাস প্রতিদিন রাঙামাটির উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। এছাড়া চট্টগ্রামে এর বিআরটিসি, অক্সিজেন মোড় ও বিভিন্ন বাসস্টেশন থেকেও রাঙামাটির গাড়ি পাওয়া যায় খুব সহজে। আপনি চাইলে প্রাইভেট গাড়ি নিয়েও ঘুরে আসতে পারেন রাঙামাটি থেকে । তবে  সেক্ষেত্রে আপনার প্রয়োজন লাগবে অভিজ্ঞ চালক ।

 

রাঙ্গামাটি এর হোটেলও গেস্ট হাউজ।

রাঙামাটিতে রাত্রি যাপনের জন্য সরকারি ও বেসরকারি অনেকগুলো হোটেল ও গেস্ট হাউজ রয়েছে ।এছাড়া  রয়েছে বোডিংও। তবে বোডিংয়ের খরচ কম হলেও দুঃখের বিষয় সেখানে  খুব ভালো ব্যবস্থা নেই।

 

রাঙ্গামাটির বেশ কয়েকটি হোটেলের বর্ণনা

 

পর্যটন হলিডে কমপ্লেক্স:

১২টি শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত রুমসহ অনেক কয়েকটি সিঙ্গেল ও ডাবল রুম রয়েছে এই হোটেলে।

 

হোটেল সুফিয়া:

এখানে ১৫টি শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ও ১০টি সাধারণ রুম রয়েছে ।

হোটেল নিডস হিল ভিউ: 

এখানে ১৫টি শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ও ১০টি সাধারণ রুম রয়েছে ।

রাঙ্গামাটি ভ্রমণ টিপসঃ

রাঙ্গামাটি ভ্রমণ টিপসঃ

 

হোটেল গ্রীন ক্যাসেল

এই হোটেলে রয়েছে ৭টি সুন্দর শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত রুম। এছাড়া রয়েছে সিঙ্গেল ও ডাবল রুম

 

এ হোটেল গুলো ছাড়া আপনি পাবেন, হোটেল জজ, হোটেল আল মোবা, হোটেল মাউন্টেন ভিউ, হোটেল ডিগনিটি, হোটেল সাফিয়া, হোটেল ড্রিমল্যান্ড সহ বেশ কয়েকটি মধ্যম সাড়ির হোটেল।

উপরের সবকটি হোটেল-ই রাঙামাটি জেলা শহরের কেন্দ্রে অবস্থিত। তাই এখানে অবস্থান করেই খুব সহজেই ঘুরে বেড়াতে পারবেন জেলার সবকটি দর্শনীয় স্থানে।নে ২৭টি শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত রুম আছে । এছাড়া এখানে ছোট-বড় সাধারণ কক্ষ রয়েছে আরও ৩৫টি সুন্দর রুম।